মাউন্ট এভারেস্ট ও কে২ এর পরে এটি হিমালয়ের দ্বিতীয় উচ্চতম ও পৃথিবীর তৃতীয় উচ্চতম পর্বতশৃঙ্গ কাঞ্চনজঙ্ঘা। যার উচ্চতা ৮,৫৮৬ মিটার (২৮,১৬৯ ফুট)। এটি ভারতের সিকিম রাজ্যের সঙ্গে নেপালের পূর্বাঞ্চলীয় সীমান্তে অবস্থিত। হিমালয় পৰ্বতের এই অংশটিকে কঞ্চনজঙ্ঘা হিমাল বলা হয়। এর পশ্চিমে তামূর নদী, উত্তরে লহনাক চু নদী এবং জংসং লা শৃঙ্গ, এবং পূর্বদিকে তিস্তা নদী অবস্থিত।

কাঞ্চনজঙ্ঘা মাউন্ট এভারেস্টের ১২৫ কিঃমিঃ পূর্ব-দক্ষিণ-পূর্ব দিকে অবস্থিত। এটা হিমালয়ের দ্বিতীয় উচ্চতম শৃঙ্গ। এর পাঁচটি মূল শৃঙ্গের মধ্যে তিনটা – মুখ্য, কেন্দ্ৰীয় এবং দক্ষিণ – ভারতের উত্তর সিক্কিম জেলায়, এবং নেপাল সীমান্তে অবস্থিত। বাকী দুটি শৃঙ্গ নেপালের তাপ্লেজুং জেলায় অবস্থিত।

পাসপোর্ট-ভিসা ছাড়াই দেশের গন্ডি থেকে দেখা যাচ্ছে কাঞ্চনজঙ্ঘা। দেশের সর্ব উত্তরের জেলা পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া থেকে খালি চোখে দেখা যাচ্ছে ছবির মতো ভেসে উঠা শেত শুভ্র কাঞ্চনজঙ্ঘার অপরুপ দৃশ্য।
এছাড়াও সেখান থেকে দেখা যাচ্ছে দার্জিলিংয়ের বিভিন্ন পাহাড়ি অঞ্চল।

দেশের সীমানা পেরিয়ে যাদের এ পর্বত দেখার সুযোগ হয় না, তারা শীতের সময় দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পঞ্চগড়ে ছুটে আসেন এ দৃশ্য উপভোগ করতে।

পঞ্চগড়ের প্রায় সব জায়গা থেকে কাঞ্চনজঙ্ঘার মনোমুগ্ধকর অপরূপ দৃশ্য খালি চোখে দেখা গেলেও সব চেয়ে ভাল দেখা যায় সীমান্তবর্তী নদী মহানন্দা তীরের ঐতিহাসিক তেঁতুলিয়া ডাকবাংলো পিকনিক কর্নার থেকে। সূর্যের আলোর সঙ্গে কখনও শুভ্র, গোলাপী আবার কখনও লাল রঙ নিয়ে হাজির হয় বরফ আচ্ছাদিত এই পর্বত চূড়া।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here